.............. ................ ................... ................... www.narsingdibd.com
মূলপাতা     হোম ফিচার পর্ব -১ পর্ব -২ পর্ব -৩ পর্ব -৪ পর্ব -৫ পর্ব -৬ পর্ব -৭ পর্ব -৮ ফিরেযাই

 

 নরসিংদীর স্পট ফিচার পর্ব -

        শহর থেকে ১৭ কিলোমিটার উত্তরে শিবপুর উপজেলার যোশর বাজারের শ্রীশ্রী গোপীনাথ জিউর আখড়া ধামনরসিংদী অতীতে হিন্দুপ্রধান এলাকা ছিলসেই হিসেবে এ জেলায় অনেক প্রাচীন মন্দির রয়েছেসেসব মন্দিরের অধিকাংশরই অবস্থা এখন জরাজীর্ণ তারপরও ইতিহাস রক্ষায় এই মন্দিরগুলোর গুরুত্ব অপরিসীমনরসিংদীর শিবপুর উপজেলার যোশর গ্রামএটা কিন্তু যশোর না যোশরএটি নরসিংদীর একটি প্রাচীন জনপদ৭৭০ বছরের প্রাচীন এই মন্দিরটার নাম শ্রীশ্রী গোপীনাথ জিউর আখড়াএই মন্দিরটি প্রথম নির্মাণ কে করেছিলেন তা জানা যায়নিআখড়াটির ভেতর ও বাইরে মোট ৬টি মন্দির আছেবাইরের দুটি মন্দিরের মধ্যে একটি একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে
শ্রীশ্রী গোপীনাথ জিউর আখড়াটি প্রায় ৭ কানি জায়গাজুড়ে অবস্থিত ভেতরে যে চারটি মন্দির আছে তার মধ্যে রাধাকৃষ্ণ ও বলরাম দেবতার মন্দিরটি প্রধানতাছাড়া বর্তমানে যে গোপীনাথের মন্দিরে পুজো দেয়া হয় সেটির প্রতিষ্ঠাতা এক সন্ন্যাসী নিধিরাম বাবাজির সমাধিও আছে মন্দিরের পাশাপাশি
প্রাচীন এই মন্দিরগুলোর গায়ে নকশা ও মূর্তি আঁকা আছেসেই মূর্তির মধ্যে দুজন দারোয়ানের বৃহ মূর্তি আছেকিন্তু এই দুই দারোয়ানে মন্দিরের রুপার বাঁশি, মাথার ছড়াসহ দেবতার মূল্যবান অলঙ্কার, শঙ্খ, বেল, কাঁসাসহ মূল্যবান সবই   চুরি  হওয়া  থেকে  ঠেকাতে  পারেনিঅনেক আগেই ভগবানের নিম কাঠের প্রাচীন মূর্তিটি চুরি হয়ে গেছে এই তো দুবছর আগেও মন্দিরের চূড়া থেকে কলসিটি চুরি হয়ে গেলএখানে পুরো মন্দিরটি একে একে চুরি হয়ে যাওয়ার আগেই পারলে দেখে যান  প্রাচীন শ্রীশ্রী গোপীনাথ জিউর আখড়া ধাম
   মহামায়া আশ্রমটি কে প্রতিষ্ঠা করেছেন তা জানা যায়নিতবে এটার প্রতিষ্ঠাকাল বাংলা ৭০৭ সাল সেই হিসেবে এর বয়স হয়েছে ৭শ বছরেরও বেশিমনোহরদী উপজেলার বরচাপা ইউনিয়নের গণকপুর বিলের ধারে এই মহামায়া আশ্রমে প্রতি বছর বৈশাখ মাসের ১ তারিখ থেকে ৭ দিন মহাধুমধামে পূজার্চনা হয় এবং সেই উপলক্ষে বিশাল মেলা বসেশুধু মেলা বা পূজার জন্যই না, এই আশ্রমের সঙ্গে গণকপুর বিলটিও বিখ্যাত তার কল্পকাহিনীর জন্য এই বিলের পানি পবিত্র এবং সর্বরোগের মহৌষধপ্রাকৃতিক সৌন্দর্যের বিচারেও এটি প্রথম সারির দাবিদারগণকপুর বিলের পানি কখনো শুকায় নাএ বিলের মাছ দারুণ সুস্বাদুএখানে পলো দিয়ে মাছ ধরা একসময় ঐতিহ্যগত উসব ছিল এখানেই রয়েছে সেই গণকপুর বিলের ধারের মহামায়া আশ্রম
          শহর থেকে ১৩ কিলোমিটার উত্তরে শিবপুর উপজেলার কুন্দারপার এলাকাএখানে রয়েছে লাল মাটির ছোট  ছোট অনেক টিলাএগুলোর নাম সোনাইমুরি টেকঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নরসিংদীর এই স্থানে টিলা কেটে রাস্তা বানানো হয়েছেতাই খেয়াল করলেই এই লাল টিলাগুলো দেখতে পাবেনবর্তমানে এই টিলাগুলোকে ঘিরে পর্যটনের সুযোগ-সুবিধা দেয়ার চেষ্টা চলছেতাই এই টেকের নাম এখন সোনাইমুরি বিনোদন পার্ক
 নরসিংদীর একমাত্র সবেধন নীলমণিএখানের মাটি টকটকে লালসঙ্গে উঁচুনিচু বুনো পায়ে হাঁটা পথছুটির দিনে সোনাইমুরি টেকে শহরের মানুষ বেড়াতে আসেঈদ বা পুজোর ছুটিতে এখানে চরম হইহুল্লোড় হয়তবে পার্ক হিসেবে এখানে তেমন কোনো কিছু এখনো গড়ে ওঠেনিতাই, পরিবেশ ঠিক রেখে রুচির পরিচয় দেয়ার সময় এখনো হাতে রয়েছে পার্ক কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অবশ্যই ভেবে দেখবেন নরসিংদী বেড়াতে এলে আপনিও বেড়িয়ে যান এই সোনাইমুরি টেক থেকে
         নরসিংদী শহর থেকে ২৬ কিলোমিটার উত্তরে মনোহরদী উপজেলার ডোমনামারা গ্রামএখানে আছে  সৈয়দ দোস্ত মাহামুদ (র.) এর মাজারনাম দোস্ত মাহামুদ হলেও এই ওলি ব্যক্তি সাধারণের কাছে ধরা দিতেন নাপাগলাটে স্বভাবেরতিনি কখনো কখনো গাছে ঝুলে বা চিকন ডালে নির্বিকার দাঁড়িয়ে থাকতেনদোস্ত মাহামুদের মাজারটি আনুমানিক ৪শ বছরের পুরনোধারণা করা হয় তিনি বাগদাদ থেকে এসেছিলেনপ্রতিবছর মাঘ মাসের প্রথম সোমবার উরস ও মঙ্গল থেকে বৃহস্পতি তিনদিন জমজমাট মেলা বসে

 

Copyright 2021 www.narsingdibd.com Aestheticsand Mohammad Obydullah.01674605316. All Rights Reserved.